ঘরে বসেই শুরু করুন বিউটি পার্লার এর বিজনেস ।

Raquibul

রূপচর্চার বিষয়টি সেই আদিকাল থেকে চলে আসছে। আর রূপজগতের ভেলায় সবাই একটু হলেও নিজেকে ভাসিয়ে রাখতে পছন্দ করেন। সময়ের সাথে সাথে সব কিছুই পরিবর্তিত হচ্ছে, সাজগোজের বিষয়েও আসছে নতুনত্বের ছোঁয়া।

রূপচর্চা তো ঘরে বসেও করা যায় কিন্তু পার্লার এনেছে অনেক নতুন নতুন পদ্ধতি যা সবার মন কেড়েছে আর সেই সাথে ফ্যাশন এর বিষয় সম্পর্কেও সকলকে সচেতন করছে আগের থেকে অনেক বেশী। আর তাই সব শ্রেণীর কাস্টমারদের কথা চিন্তা করে আপনাকে পার্লার স্থাপন করতে হবে।

জনবহুল কোন একটি এলাকাকে কেন্দ্র করেই আপনি পার্লার স্থাপন করতে পারেন। স্বল্প পুঁজি খাটিয়ে পার্লার ব্যবসা শুরু করা সম্ভব। পার্লারকে ভালভাবে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য একজন পার্লার মালিক বা বিউটিশিয়ানকে পেশাগতভাবে দক্ষ হতে হতে হবে। এজন্য প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষন নিতে পারেন এসএমই ফাউন্ডেশন থেকে। অথবা আপনার এলাকার ভাল কোন পার্লার থেকে শিখে নিতে পারেন এ সম্পর্কিত যাবতীয় কাজ।

পার্লারকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলতেে আপনার খুব বেশি কষ্টকর কিছু করতে হবেনা। মনের মধ্যে শুধু আত্মসংকল্প ও সাহস থাকলেই হবে। আর ধীরে ধীরে যখন আপনার পার্লারের চাহিদা বাড়তে থাকবে তখন কাজের মান ও পরিধি আরও বাড়াতে কর্মীর যোগান দিতে হবে।

পার্লারে চাহিদা আর প্রয়োজন অনুযায়ী বিভিন্ন ধরনের যন্ত্রপাতি স্থাপন করতে হবে আপনাকে। বর্তমান সময়ে পার্লারের ক্ষেত্র আরও বিস্তৃত হয়েছে। ছেলে মেয়ে সবার জন্য এখন পার্লার। ছেলেদের জন্য জেন্টস পার্লার আর মেয়েদের জন্য বিউটি পার্লার।

আপনার বাড়িতেই ছোটো একটি রুমে কিছু আসবাবপত্র নিয়ে কাজ শুরু করতে পারেন। এরপর আস্তে আস্তে কাস্টমারদের চাহিদা মেটানোর জন্য ভাল মানের আসবাবপত্র যেমন চেয়ার, আয়না, হেয়ার স্পা মেশিন, হেয়ার রিকভারি মেশিন, ফেসিয়াল মেশিন, হেয়ার হিটার আরও নানারকমের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র দিয়ে কাজ করতে পারেন। সেই সাথে আরও প্রয়োজন পড়বে কিছু কসমেটিক্স এর। ধীরে ধীরে এর কাজের ধারায়ও পরিবর্তন আনতে পারবেন।

আপনি আপনার পার্লার এর রুমটি নিজের ইচ্ছে অনুযায়ী সাজাতে পারেন। সাজানো গোছানোর বিষয়টা একান্তই নিজস্ব ইচ্ছের উপর নির্ভর করে। আপনি যেভাবে সাজাবেন সেভাবেই সেজে উঠবে আপনার পার্লার। সাড়া পাওয়া শুরু করলে প্রচারের মাধ্যমে আপনার পার্লার এর সুনাম ও কাস্টমার বাড়ানোর সুযোগ তৈরী করে ফেলতে পারবেন।

পার্লার ব্যবসা যদি আপনি সফলতা পেতে চান তবে অবশ্যই আপনাকে ধৈর্য ধারণ করতে হবে। প্রাথমিক অবস্থায় প্রায় পঞ্চাশ থেকে আশি হাজার টাকা খরচ হতে পারে। নিজের কাছে এত পুঁজি না থাকলে বিভিন্ন ব্যাংক থেকে স্বল্পসুদে ক্ষুদ্র ঋণ, মহিলা উদ্যোক্তা ঋণ নিয়ে ব্যবসার কাজ শুরু ও কাজের আওতা বৃদ্ধি করতে পারবেন এবং প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র স্থাপন করে আপনার পার্লার ব্যবসাকে সমৃদ্ধ করাও সম্ভব।

আপনার পার্লার যদি ছোটখাটো ও অল্প পরিসরে হয়ে থাকে তাহলে আপনার প্রাথমিক আয় হতে পারে মাসে পনের থেকে বিশ হাজার টাকা। আর আপনার পার্লার বড় ও বিস্তৃত পরিসরে স্থাপন করলে মাসে লক্ষ টাকারও বেশি আয় করতে পারবেন। প্রথমদিকে আয়ের পরিমাণ কম হলেও ধৈয্য হারা না হয়ে চালিয়ে যেতে থাকলে এর আয়ের পরিমাণ আপনার জন্য লাভজনক কিছু বয়ে আনতে পারে যা আপনাকে নিয়ে যেতে পারে সাফল্যের দোরগোড়ায়।

আপনি আপনার পার্লারে সুবিধামত কর্মী নিয়োগ দিতে পারেন। পার্লারের কার্যক্রম শুরুর দিকে নিজেই ও পরে একজন বা দুইজন কর্মী নিয়োগ দিতে পারেন। এমনকি বিস্তৃত ও বড় পর্যায়ে গেলে এখানে দশ বিশ জন কর্মী নিয়োগ করে শাখা স্থাপনের মাধ্যমেও সমৃদ্ধ করতে পারবেন আপনার স্বপ্নের ব্যবসায়কে। কর্মী নিয়োগের প্রথমে আপনি নিজেই কর্মীদেরকে প্রশিক্ষণ দিতে পারেন যাতে তারা ভাল আউটপুট দিতে পারে।

 প্রশ্ন : কত টাকা লাগতে পারে পার্লার করতে ?
প্রাথমিক পর্যায়ে ৫০-৬০ হাজার টাকা খরচ করেই আপনি পার্লার বিজনেস শুরু করতে পারবেন ।

 প্রশ্ন : প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র কোথায় কিনতে পাবো ?
আপনার আসে পাশের কসমেটিক এর দোকানে বেশির ভাগ জিনিস পেয়ে যাবেন ।

 প্রশ্ন : প্রশিক্ষণ কোথা থেকে নেব ?
ভালো কোনো বিউটি পার্লার থেকে প্রশিক্ষণ নিতে পারেন । প্রশিক্ষণ গুলো মোটামোটি ৩ মাসের হয়ে থাকে । ৩ মাসের প্রশিক্ষণ খরচ অবস্থা ভেদে ৩-৫ হাজার টাকা পড়তে পারে ।

 

Raquibul Islam Rakib

Founder & CEO Ponnobd

Leave a Reply

Your email address will not be published.