আমাদের দেশের ৯৭% উদ্যোক্তা কেন ব্যর্থ হচ্ছে?

আমাদের দেশের ৯৭% উদ্যোক্তা কেন ব্যর্থ হচ্ছে ?

ইনোভেশন আর নতুন কিছু দিয়ে বিজনেস শুরু করতে যেয়ে আমাদের দেশের ৯৭% উদ্যোক্তায় ব্যর্থ হয়ে যাচ্ছেন । ইনোভেশনে সময় শেষ না করে আসুন ট্রাডিশনাল বিজনেস গুলোকেই সাজায় নতুন রূপে ।

বিজনেস এ ভিন্ন মাত্রা থাকবে এটা একটা ইতিবাচক দিক আর আমরাও ইননোভেশনকে সম্মানের চোখেই দেখি । তথাপি ইনোভেশন আর ভিন্ন কিছু করতে যেয়ে আমাদের দেশের উদ্যোক্তারা সঠিক দিক হারিয়ে ফেলছেন। আর এই প্রবণতাটা বেশি দেখা যাচ্ছে তরুণ উদ্যোক্তাদের মধ্যে ।

তারা ইনোভেশন আর ভিন্নতা খুঁজতে যেয়ে এতটা সময় শেষ করে ফেলছেন যে, শেষমেষ কেউ কেউ বিজনেসটা শুরুই করতে পারেননা আবার কেউ কেউ শুরু করলেও অল্প কিছুদিন চেষ্টা করে ভালো রেজাল্ট না পাওয়ায় সেটা বন্ধ করে দেন ।

বিজনেস করার প্রথম শর্তই হলো সেল মানে বিক্রি করা । আপনি কোনো বড় কোম্পানির মালিক বা ছোট চায়ের দোকানি আপনার যদি সেল না থাকে তবে আপনার বিজনেস কোন বিজনেস না । সেল না থাকলে আপনি মুনাফা করতে পারবেন না, আর মুনাফা করতে না পারলে কিছুদিন পর আপনার কি অবস্থা হবে নিজেই চিন্তা করুন ।

সর্বোপরি দেখা যায়, যারা ইনোভেশন এর পেছনে মাত্রাতিরিক্ত সময় শেষ করে ফেলেন তারা সেল এর পেছনে তেমন সময় দিতে পারেননা অতঃপর তাদের প্রজেক্ট আর সফলতার মুখ দেখে না । আর এইভাবেই শত শত স্বপ্ন ভঙ্গের গল্প ঝুলিতে জমা হতে থাকে ।

আমরা যদি একটু গভীর ভাবে দেখি আমাদের আসে পশে যারা বিজনেস করে সফলতা অর্জন করেছেন তাদের বেশির ভাগই কিন্তু প্রথমে ট্রাডিশনাল বিজনেস দিয়ে তাদের পথচলা শুরু করেছিলেন । হুম এটা বলতে পারেন যে, তারা ট্রাডিশনাল বিজনেস গুলোর সাথে কিছু ভিন্নতা মিশিয়ে সেটা গ্রাহকের সামনে তুলো ধরেছিনেল । এতে করে গ্রাহকও তাদের প্রতি তুলনামূলক বেশি আকৃষ্ট হয়েছে ।

 একটি উদাহরণ দেই :
ধরুন আপনি একটি খাবার হোটেল খুললেন । বেশিরভাগ খাবার হোটেল গুলো মোটামোটি সব একই রকমের । কিন্তু আপনি আপনার হোটেল এর ডেকোরেশন এ একটু চেঞ্জ আনতে পারেন গ্রাহককে আকৃষ্ট করার জন্য । আপনি হোটেলের মধ্যে বাহারি গাছ রাখতে পারেন ন্যাচারাল পরিবেশ তৈরি করার জন্য আবার মাছের একুরিয়াম রাখতে পারেন । সেই সাথে একটু ভিন্ন ভাবে অন্য সব হোটেলে যখন শুধু দুধ আর রং চা পাওয়া যায় আপনি আপনার হোটেলে ৫-৭ রকমের চায়ের ব্যবস্থা রাখতে পারেন ।

এখানে একটা কথা বলে নেই, ট্রাডিশনাল বিজনেস হলো গতানুগতিক যে সকল বিজনেস আমাদের দেশে চলে সে গুলো ।

এইরকম হারজারও ছোট ছোট ভিন্নতা এনে আমরা গতানুগতিক ট্রাডিশনাল বিজনেস এখানে উদাহরণ স্বরূপ হোটেল বিজনেসকেই সম্পূর্ণ ভিন্ন ভাবে উপস্থাপন করতে পারি । আর এই ভাবে বিজনেস শুরু করার জন্য প্রয়োজন নেই কোন ইনোভেশন এর । যখন আপনার বিজনেস লেভেল একটা পর্যায় এ চলে যাবে তখন আপনি নতুন বা ইনোভেশন টাইপ কোনো বিজনেস নিয়ে চিন্তা ভাবনা করতে পারেন । নতুবা বিপদে পড়বেন এটাই স্বাভাবিক ।

কেননা আপনি যখন দেখবেন আপনি এতদিন ধরে যে ইনোভেটিভ চিন্তা ভাবনা করলেন সেটা টাকা মার্কেটিং আর ব্র্যান্ডিং এর অভাবে ব্যর্থ হচ্ছে আর ঠিক তখন কোনো বিগ জায়ান্ট কোম্পানি আপনার সেই ইনোভেটিভ আইডিয়া দিয়ে সেটার ব্র্যান্ডিং, এডভার্টাইসিং আর মার্কেটিং করে ফায়দা হাসিল করে নিচ্ছে, তখন কেমন লাগে সেটা একমাত্র যার উপর দিয়ে যায় এক মাত্র সেই জানে ।

তবে এখন আপনার কাছে আমাদের একটি প্রশ্ন ট্রাডিশনাল বিজনেস গুলোকে একটু ভিন্ন মাত্রা যোগ করে সেই বিজনেস শুরু করলে কি ভালো হয় না কি সম্পূর্ণ নতুন কিছু প্ল্যান বের করে সেটা দিয়ে বিজনেস শুরু করলে বেশি ভালো হয় । আপনার উত্তরের অপেক্ষায় রইলাম । ধন্যবাদ সবাইকে ।

 বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ খায়ের মিয়াঃ , আকিজ মিয়াঃ এইরকম হাজারো সুকসেসফুল বিজনেস ম্যান এর নাম আপনারা জানেন । একটু ভালো করে লক্ষ্য করে দেখুন তারা ট্রাডিশনাল বিজনেস দিয়ে শুরু করেছেন না কি শুরু করার প্রারম্ভেই ইনোভেটিভ কোনো কিছু দিয়ে বিজনেস শুরু করেছিলেন, আসা করছি নিজেরাই বুঝতে পারবেন কোনটি বেশী গঠনমূলক হবে।

 

Raquibul Islam Rakib

Founder & CEO Ponnobd

Leave a Reply

Your email address will not be published.